cnnbangla.tv: তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, দেশে গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রা রুদ্ধ করতেই তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করেছিল।
কোন ওয়ারেন্ট ছাড়াই আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনাকে ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই গ্রেফতার করা হয়েছিল-একথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ওইদিন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে নয়, বন্দী করা হয়েছিল দেশের গণতন্ত্রকে’।
ড. হাছান মাহমুদ আজ শুক্রবার রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) ভবনে স্বাধীনতা হলে ‘গণতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার কারাবন্দী দিবস’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন। বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।
‘এক-এগারো’র কথা স্মরণ করে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক বলেন, তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা ও দুর্নীতিমুক্ত জাতি গঠনের কথা বলেছিল। কিন্তু যারা দেশকে জঙ্গি ও দুর্নীতিবাজদের জন্য নিরাপদ করেছিল ওই সরকার তাদেরকে গ্রেফতারের পরিবর্তে শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করেছিল।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণের কন্ঠ রুদ্ধ করতেই তাঁকে (শেখ হাসিনাকে) গ্রেফতার করা হয় হয় এবং তাঁর গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে দেশের গণতন্ত্র রুদ্ধ করা হয়।’
তিনি বলেন, পরবর্তীতে তৃণমূল পর্যায়ের আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের জোরদার আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে শেখ হাসিনা মুক্তি পান।
ড. হাছান বলেন, কারান্তরীণ থাকাকালে শেখ হাসিনা স্বার্থান্বেষী একটি মহলের কাছ থেকে নানা প্রস্তাব পেলেও তিনি আপোষ করেননি।
দেশের জনগণের বৃহত্তর স্বার্থে এবং গণতন্ত্রের জন্য আওয়ামী লীগ সভানেত্রী কোন প্রস্তাবই গ্রহণ করেননি বলে তথ্যমন্ত্রী উল্লেখ করেন।
ড. হাছান বলেন, ২০০৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে ভূমিধস বিজয়ের মধ্যদিয়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে।
বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদের উপদেষ্টা এডভোকেট মোঃ জাহাঙ্গীর আলম খানের সভাপতিত্বে এ সভায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রধান বক্তা ছিলেন।
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে এবং স্বাধীনতা পরিষদের সভাপতি মোঃ জিন্নাত আলী জিন্নাহ, সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহাদাত হোসেন টয়েল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আখতার হোসেন, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা প্রমুখ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে দেশের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের বর্ণনা দিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের ৯৫ শতাংশ মানুষ এখন বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে। দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ২০০ মার্কিন ডলার থেকে বেড়ে এখন ২০০০ মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে।
তিনি বলেন, এরপরও অনেকেই দেশের উন্নয়ন দেখতে পায় না। একসময় বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া বলেছিলেন, আওয়ামী লীগ সরকার পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে পারবে না। কিন্তু এ সেতু এখন দৃশ্যমান বলে হাছান মাহমুদ উল্লেখ করেন।
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সাম্প্রতিক মন্তব্যের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক বলেন, ‘ফখরুল অভিযোগ করেছেন, উন্নয়ন প্রকল্পসমূহ থেকে কিছু মানুষ লাভবান হয়েছেন’।
তিনি বলেন, মির্জ ফখরুল কী ভুলে গেছেন বিএনপি সরকারের আমলে বিশ্বব্যাংক দুর্নীতির অভিযোগে ৫টি প্রকল্পে অর্থায়ন বাতিলের কথা !
ড. হাছান বলেন, ‘আমরা গঠনমূলক সমালোচনাকে স্বাগত জানাই, কিন্তু অন্ধ সমালোচনা নয়।’
বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আইনী প্রক্রিয়া ছাড়া বেগম জিয়ার মুক্তি সম্ভব নয়।